রবিবার, ১৬ মে ২০২১

কাজিপুরে নিরাপদ খাবার পানির উৎস বন্ধের প্রতিবাদ করায় স্বপরিবারে ইউপি সদস্য আহত

  •  
  •  
  •  
  •  

গোলাম কিবরিয়া খান কাজিপুর প্রতিনিধি: কাজিপুরে আয়রন ও আর্সেনিক মুক্ত নিরাপদ পানির উৎস বন্ধ করে দেয়ার প্রতিবাদ করতে গিয়ে ইউপি সদস্য জুয়েল রানা মা, বোন ও স্ত্রীসহ ৪জন আহত হয়েছে।

১৯ এপ্রিল সোমবার সকাল ১০:৩০ মিনিটে সদর ইউনিয়নের বিলদুয়ারিয়া বেতগাড়ী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রাঙ্গনে এঘটনা ঘটে। এবিষয়ে ৪ জনের নামে কাজিপুর থানায় লিখিত অভিযোগ দাখিল করেছে ভুক্তভোগী ৯ নং ওয়ার্ডের সদস্য জুয়েল রানা।

স্বানীয় বাসিন্দা রেহানা ইয়াসমিন (৫৫) বলেন, এলাকাবাসীর স্বাস্থ্য সুরক্ষায় আয়রন ও আর্সেনিক মুক্ত সুপেয় পানি নিশ্চিত করতে ইউকেএইড, ইউনিসেফ ও ডিপিএইচই’র অর্থায়নে ২০১৪ সালে অক্সফাম ও এমএমএস একটি পানি শোধন ফিল্টার (ট্যাংকি) স্থাপন করে। একটি টিউবওয়েলের মাধ্যমে ফিল্টারে পানি উৎস রাখা আছে। নিয়মিত মেইনটেনেন্সের জন্য আমিসহ ৮ জন ট্রেনিং করি এবং চাঁদা তুলে আমরা মেইনটেনেন্স করি। এলাকার ১৫০ পরিবার নিরাপদ পানির সুবিধা ভোগ করে আসছে।

সরেজমিনে স্থানীয় বাসিন্দারা জানায়, ফিল্টারের টিউবওয়েল থেকে পানি সরবরাহ কষ্টসাধ্য বিধায় এলাকাবাসী চলতি রমজানে পার্শ্ববর্তী মসজিদের পাম্প থেকে পাইপ সংযোগ করে সাময়িক ভাবে পানি সরবরাহ করছিল।

ইউপি সদস্য জুয়েল রানার দাখিলকৃত অভিযোগ অনুযায়ী, গত ৩ দিন পূর্বে অভিযুক্ত বেতগাড়ি গ্ৰামের ( বর্তমান দুবলাই ভাঙ্গাবাড়ি) আবু সাইদ (মিলিটারি), আক্তার হোসেন (৫৫), সজিব মিয়া(২০) এবং আসকান আলী(৩৫) ট্যাংকিতে পানি সরবরাহের পাইপ খুলে রাখে। এতেকরে ১৫০ পরিবার খাবার পানির সংকটে পরে।

স্থানীয় জনপ্রতিনিধি হিসেবে ভুক্তভোগীদের অভিযোগের ভিত্তিতে বিষয়টি সুরাহার উদ্দেশ্যে স্থানীয় মুরব্বিদের অবগত করে জুয়েল। এতে পুণরায় সংযোগ পাইপ লাগাতে বাধ্য ও ক্ষিপ্ত হয়ে অভিযুক্তরাসহ অজ্ঞাত ৭/৮ জন বাঁশের লাঠি ও লোহার দা নিয়ে জুয়েলের বাড়ির সামনে তার উপর আক্রমন করে। আত্মচিৎকারে পরিবারের সদস্যরা এগিয়ে আসলে বেধড়ক পিটুনিতে জুয়েলের মা, বোন ও স্ত্রী মারাত্মকভাবে আহত হয়। স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার করে কাজিপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পাঠায়।

শেয়ার করুন »

লেখক সম্পর্কে »

মন্তব্য করুন »

x