শুক্রবার, ১৮ জুন ২০২১

টিআর কাবিখার সর্বোচ্চ ব্যবহার করেছিঃ তানভীর শাকিল জয় এমপি

  •  
  •  
  •  
  •  

কাজিপুরের দুর্গমতা দূর করতে সরকারি বরাদ্দ টিআর, কাবিখা ও কাবিটা সর্বোচ্চ ব্যবহার করা হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন স্বেচ্ছাসেবক লীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সভাপতি প্রকৌশলী তানভীর শাকিল জয় এমপি। তিনি গত ৩০ ও ৩১ মে উল্লেখিত বরাদ্দে নির্মাণাধীন চরাঞ্চলের ৪০ কিঃমিঃ রাস্তা পরিদর্শন শেষে হোয়াটসঅ্যাপ মেসেজ এ উন্নয়ন কর্মকান্ডের বিবরণ তুলে ধরেন। স্ট্যাটাসটি হুবহু তুলে ধরা হলোঃ

দ্বিতীয় বার কোভিড আক্রান্ত হওয়ার পরে প্রায় দুই মাস অতিক্রান্ত করে আমার প্রাণপ্রিয় কাজিপুরে আমি গত ৩০ শে মে প্রিয় মানুষগুলোর কাছে আবারও ফিরে যাই। ৩১ শে মে যমুনার বুকে প্রিয় নাটুয়ারপাড়া, চরগিরিশ এবং মনসুরনগর ইউনিয়নে গ্রামীণ অবকাঠামো উন্নয়নের কাজগুলো সরেজমিনে পরিদর্শন করি।

নাটুয়ারপাড়া ইউনিয়ন সহ চরের বিস্তীর্ণ অঞ্চল রক্ষা কল্পে বিগত চার বছর যাবৎ আমরা যমুনা নদীর বুকে একটি মাটির বাঁধ নির্মাণ করেছি। আমাদের মহান নেতা মরহুম আলহাজ্ব মোহাম্মদ নাসিমের সরাসরি নির্দেশনায় সরকারি টিআর কাবিখার সর্বোচ্চ ব্যবহার করে আমরা এই বাধটি নির্মাণ করেছি। পরবর্তীতে এই বাঁধ টি পাকা করার ব্যবস্থা করা হয়েছে। গত দুই বছরের ব্যাপক বন্যায় বাঁধের সামনের অংশগুলো ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এই বছর পুনরায় বরাদ্দ দিয়ে সামনের অংশটি মেরামত এবং বর্ধিত করা হয়। সেই বর্ধিত এবং বাঁধ এর
মূল অংশ রক্ষাকল্পে পানি উন্নয়ন বোর্ডের যে বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে তার সমপরিমাণ বরাদ্দ আমি ব্যক্তিগত এবং আমার সরকারি তহবিল থেকে প্রদান করে জিও ব্যাগ এর মাধ্যমে বাদ রক্ষাকল্পে কার্যক্রম শুরু করা হয়েছে। আশা করি আপনাদের দোয়া এবং সহযোগিতায় এই কাজটিতে আমরা ইনশাআল্লাহ সফল হব।

আমার নির্বাচনী প্রতিশ্রুতির একটি অন্যতম অংশ মনসুরনগর থেকে বহুলী পর্যন্ত এই বিস্তীর্ণ অঞ্চলে যত মাটির রাস্তার কাজ প্রয়োজন রয়েছে সর্বোচ্চ সংখ্যক কাজ আগামী ২৪ মাসের মধ্যে সম্পন্ন করা। তারই ধারাবাহিকতায় এরইমধ্যে শুধুমাত্র কাজিপুরে ৪০ কিলোমিটার এর অধিক মাটির রাস্তার কাজ চলমান রয়েছে। মনসুরনগর এবং চরগিরিশ এ ২০ কিলোমিটার এর অধিক মাটির রাস্তা নির্মাণের কাজ চলমান রয়েছে এবং আগামী এক মাসের মধ্যে এগুলো সম্পন্ন হবে বলে আমি দৃঢ়ভাবে আস্থাশীল। মনসুরনগর এবং চরগিরিশ এই রাস্তার কাজ গুলো পরিদর্শন করার সময় সকল নেতৃবৃন্দের সহযোগিতা এবং প্রিয় জনগণের হাসি ভরা মুখ আমাকে আপ্লুত করেছে। ইনশাল্লাহ আপনাদের দোয়ায় এবং সহযোগিতায় ‌ আমাদের লক্ষ্য অর্জিত হবেই।

পহেলা জুন প্রিয় সোনামুখী ইউনিয়নের হরিনাথপুরের নির্মাণাধীন সর্ববৃহৎ মাটির রাস্তা কাজ পরিদর্শন করি। প্রায় তিন কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের পরানপুর হরিনাথপুর সংযোগের এই রাস্তাটিও ইনশাল্লাহ আমরা অল্প সময়ে সম্পন্ন করব।
আমাদের প্রিয় নেতার চলে যাওয়ার এই বেদনাবিধুর মাসে আপনাদের দোয়ায় এবং ভালোবাসায় আবারো প্রতিজ্ঞাবদ্ধ হতে চাই প্রিয় নেতার উন্নত সমৃদ্ধশালী উত্তর সিরাজগঞ্জ গড়ে তোলার দৃঢ় প্রত্যয়ে।

জয় বাংলা জয় বঙ্গবন্ধু।

শেয়ার করুন »

লেখক সম্পর্কে »

মন্তব্য করুন »

x