বুধবার, ০৩ মার্চ ২০২১

ফিরছেন নগর বাউল জেমস

  •  
  •  
  •  
  •  

নিউজ ডেস্ক:

ভক্তদের কাছে তিনি গুরু, ব্যান্ড সংগীতের মুকুটহীন সম্রাট, নগরবাউল জেমস। কণ্ঠের মাদকতা, ব্যতিক্রমী গায়কি আর নিজস্ব স্টাইল স্টেটমেন্ট তাকে পৌঁছে দিয়েছে আলাদা এক উচ্চতায়। শুধু দেশ নয়, ভারতসহ বিভিন্ন দেশে তার জনপ্রিয়তা চোখে পড়ার মতো। এক সময় নিয়ম করে ক্যাসেট, তারপর সিডি বের হয়েছে ব্যান্ড নগরবাউলের। আর কনসার্টে জেমসের শিডিউল পাওয়া যেন সোনার হরিণ পাওয়ার মতো বিষয় ছিল আয়োজকদের কাছে। কিন্তু এই কিংবদন্তি এখন বেশ নিভৃতে থাকতে পছন্দ করেন। সিঙ্গেলের যুগে তার নতুন গান তেমন পাওয়া যায়নি। তবে বাজিমাত করেছেন সিনেমায়। দেশের প্রথম ব্যান্ড তারকা হিসেবে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পান তিনি। এরপর পেয়েছেন একাধিকবার। সিনেমায় তার গাওয়া গানগুলোর জনপ্রিয়তা তুঙ্গে।

করোনার মধ্যে সবার মতো তিনিও সেভাবে কোনো নতুন গান দিতে পারেননি। কিন্তু অন্যরা সোশ্যাল মিডিয়া বা অনলাইনে সরব থাকলেও এই তারকাকে পাওয়া যায়নি। গত মাসে জনপ্রিয় অভিনেত্রী জয়া আহসানকে নিজের ক্যামেরার ফ্রেমে ধারণ করে খবরের শিরোনামে আসেন এই জনপ্রিয় গায়ক। এখন পাওয়া গেল কনসার্টের খবর। সব মিলিয়ে তিনি আবারও ছন্দে ফিরছেন বলেই জেমসভক্তদের আশাবাদ। কারণ জেমস মানেই এক নস্টালজিয়ার নাম।

সর্বশেষ গত বছরের ১ মার্চ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মুহসীন হলের মাঠে আয়োজিত কনসার্টে দেখা গিয়েছিল জেমসকে। এরপর করোনার কারণে এক বছর এই শিল্পীকে কোনো মাধ্যমে পারফর্ম করতে দেখা যায়নি। এক বছরের বিরতি ভেঙে সেই মার্চেই গানের মঞ্চে ফিরছে নগরবাউল ও জেমস। আনন্দ সংবাদটি দেশ রূপান্তরকে নিশ্চিত করেছেন তার মুখপাত্র রুবাইয়াৎ ঠাকুর রবিন। তিনি বলেন, ‘দীর্ঘ এক বছর পর আসছে ৫ মার্চ থেকে আবারও নগরবাউল ও জেমস ভাইকে নিয়মিত মঞ্চে পাওয়া যাবে। ৫ মার্চ একটি করপোরেট শোর মাধ্যমে মঞ্চে ফিরছেন জেমস ভাই। এরপর এসএসসি-২০০১ ব্যাচের ২০ বছর পূর্তি উপলক্ষে মিরপুর ১৪ নম্বর পিএসসি কনভেনশন হলে ‘ক্লাসরুম’ আয়োজিত কনসার্টে অংশ নেবেন তিনি। এই দুই শোসহ মার্চে মোট ৪ থেকে ৫টি শোতে জেমস ভাইকে দেখা যাবে। বাকীগুলো কর্পোরেট শো।’

আয়োজকরা জানিয়েছেন, ‘সবার প্রিয় নগরবাউল জেমস! যার গান শুনে বন্ধুরা উন্মাতাল হয়ে যেতাম। সেই গুরু আসছেন গানে গানে মাতাতে। বন্ধুদের নিয়ে হারিয়ে যেতে চাই সোনালি অতীতে।’

আপাতত প্লেব্যাকের নতুন কোনো খবর নেই। এখন তিনি পুরোপুরি মনোযোগ দিচ্ছেন কনসার্টে। এর বাইরে ছবি তোলা নিয়েই তার বেশি সময় কাটে। প্রতিটি ফ্রেমকে কীভাবে আলাদা করা যায়, নান্দনিক করা যায় সেসব নিয়ে এক্সপেরিমেন্ট করেন। এ প্রসঙ্গে দেশ রূপান্তরকে জেমস বলেন, ‘শুধু ছবি তুললেই তো হলো না। তার পেছনে অনেক কাজ থাকে। সেসব নিয়ে বিস্তর ভাবনার জায়গা রয়েছে। ছবির পেছনে সময় না দিলে ভালো ছবি হয় না।’

জেমস শুধু মডেল ফটোগ্রাফি করেন না, বিশ্বের যেখানে গানের ট্যুরে যান সেখানকার প্রকৃতি, মানুষসহ নানা বিষয়ে ছবি তোলেন। এত ছবি নিয়ে কোনো এক্সিবিশন বা বই প্রকাশের ইচ্ছা আছে কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘সময় সিদ্ধান্ত দেবে।’ নিজে এখন নতুন গান প্রকাশ না করলেও এ সময়ের প্রচুর গান তিনি শোনেন। জানালেন, ‘এখন যারা কাজ করছে তাদের অনেকের গান ভালো লাগে। আরও ভালো করবে সেই প্রত্যাশা রইল। সবচেয়ে বড় কথা হলো দর্শক-শ্রোতাদের আনন্দ দিতে হবে। এন্টারটেইনার হতে হবে। তাহলেই শিল্পের যে কোনো শাখার সফলতা অব্যাহত থাকবে।’

শেয়ার করুন »

লেখক সম্পর্কে »

মন্তব্য করুন »

x