শনিবার, ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১

স্থানীয় উন্নয়নে গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় আপনি কাকে ভোট দিবেন ?

  •  
  •  
  •  
  •  

গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া অব্যাহত রাখার আজ একটাই রাস্তা-বেরিয়ে আসুন, ভোট দিন। এটা এখনকার পরিস্থিতি আর রাজনীতি দুয়েরই উন্নতি ঘটাবে। আপনার মতামত ভোটের মাধ্যমে প্রয়োগ করেন। ভোট দেওয়ার মাধ্যমে আপনারা পরিষ্কারভাবে জানান দেবেন যে আপনার সবার ওপরে গণতান্ত্রিক মূল্যবোধকে ঠাঁই দেন। যে দলটা বাংলাদেশকে এগিয়ে নিয়েছে, আপনাদের জীবনে ইতিবাচক পরিবর্তন এনেছে, তাদের ভোট দেওয়ার মাধ্যমে আপনারা ভালো রাজনীতিবিদদের পুরস্কৃত করবেন। এটাই আপনার অধিকার।

একটি দেশের উন্নয়নের মুলে থাকে সে দেশের সরকার।সরকারের রাষ্ট্র পরিচালনা ও দক্ষতার উপর দেশ ও দশের উন্নতি নির্ভর করে।বিগত বার বছরে বাংলাদেশে উল্লেখ করার মত কি উন্নয়ন সাধন হয়েছে? তার উপর ভিত্তি করে ভোট দিন। এই উন্নয়নের ধারা বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের হাত ধরে হয়েছে নাকি কার হাত ধরে হয়েছে। এই উন্নয়নকে গতিশীল রাখতে একটি উন্নয়ন বান্ধব স্থানীয় সরকার নির্বাচিত করার লক্ষে আপনি ভোট কাকে দিবেন? ঠিক করুন।

যে কোন দেশের স্বাধীনতা সে দেশের মানুষের জন্য খুব গর্বের। আমাদের বাংলাদেশে এক রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের মাধ্যমে স্বাধীন হয়েছিলো। সেই মুক্তিযুদ্ধের নেতৃত্ব দান কারী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর দল বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ।তাই মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ভবিষ্যৎ প্রজন্মের কাছে তুলে ধরতে আওয়ামীলীগকেই বার বার কেন প্রয়োজন?স্বাধীনতা বিরোধী, যুদ্ধাপোরাধী রাজাকারদের স্বাধীন বাংলাদেশ থেকে হটাতে প্রয়োজন স্বাধীনতা পক্ষের শক্তি বাংলাদেশ আওয়ামীলীগকে নাকি অন্য কাওকে? কারন যারা পূর্বে স্বাধীন বাংলাদেশ চায়নি তারা ভবিষ্যতে ক্ষমতায় আসলে আবারও দেশদ্রোহী ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হতে পারে এ কথা নিশ্চই বলা যেতে পারে।

কৃষিপ্রধান দেশ বাংলাদেশ।এদেশের কৃষিক্ষেত্রে শেখ হাসিনার সরকার যুগান্তকারী উন্নয়ন সাধন করেছে। আওয়ামী লীগ সরকারের চেষ্টায় দেশে কৃষি বিপ্লব হয়েছে। সরকার কৃষকদের আর্থিক সহযোগিতা করার পাশাপাশি কৃষি গবেষণা পরিচালিত করেছে।

এখন ভাবুন আপনি কাকে এবং কেন ভোট দিবেন? 

যেমন ধরুন, নৌকা মার্কা কার?

হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি, স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের মার্কা নৌকা। মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষের শক্তির মার্কা নৌকা। রাজাকার ও যুদ্ধাপরাধীদের বারবার সংসদে স্থান দিয়েছে তাদের বিপক্ষের মার্কা নৌকা। যুদ্ধাপরাধীদের গাড়িতে তুলে দিয়েছে ত্রিশ লক্ষ শহীদের পবিত্র পতাকা তাদের বিপক্ষের মার্কা নৌকা। নিজামীর মতো ভয়াবহ যুদ্ধাপরাধী বিএনপির শাসনামলে মন্ত্রী ছিল তাদের বিপক্ষের মার্কা নৌকা। হরতালের নামে সন্ত্রাসী কর্মকান্ড করে মানুষ পুড়িয়ে মেরেছে তাদের বিপক্ষের মার্কা নৌকা।
বাংলাদেশকে বারবার যারা রক্তাক্ত করেছে তাদের বিপক্ষের মার্কা নৌকা। তাহলে ভোট কাকে দেবেন? মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষ শক্তির দল আওয়ামী লীগকে, নাকি স্বাধীনতা বিরোধী চক্র বিএনপি জামাত গোষ্ঠীকে-সে বিচারের ভার আমি আপনাদের উপরই ছেড়ে দিলাম।

লেখক : মুনিরুল ইসলাম খান 

 

শেয়ার করুন »

লেখক সম্পর্কে »

মন্তব্য করুন »

x