বরিশালে ৩০ টাকার ‘ডাব’ ২২০ টাকায় বিক্রি


দৈনিক সিরাজগঞ্জ ডেস্ক প্রকাশের সময় : অগাস্ট ২০, ২০২৩, ৯:১৯ অপরাহ্ন /
বরিশালে ৩০ টাকার ‘ডাব’ ২২০ টাকায় বিক্রি

বরিশালে গত এক সপ্তাহের ব্যবধানে অতীতের সকল রেকর্ড ভেঙেছে ডাবের দাম। আকার ভেদে প্রতিপিস ডাব এখন ১৬০ থেকে ২২০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। সরেজমিনে ডাবের দামে এমন চিত্রই দেখা গেল বরিশাল নগরীর বিভিন্ন এলাকায়।

বরিশাল সদর উপজেলার চাঁদপুরা ইউনিয়নের তালুকদার বাড়ির খলিলুর রহমান জানান, পাঁচদিন আগেও তার গাছের ডাব প্রতিপিস ৩০ টাকা দরে পাইকারি বিক্রি করেছেন। কাছাকাছি অভিজ্ঞতা চরকাউয়া ইউনিয়নের কর্নকাঠি গ্রামের মুসা খানের। গাছ থেকে পাইকারি প্রতিপিস ৩০/৪০ টাকা দামে বিক্রি করা হলেও ভোক্তা পর্যায়ে ডাবের দাম হঠাৎ ক্রয় ক্ষমতার বাইরে চলে গেছে।

ক্রেতারা বলছেন, ডেঙ্গুর প্রকোপকে পুঁজি করে ডাব সিন্ডিকেট সক্রিয় হয়ে উঠেছে নগরী ও আশপাশের এলাকায়। বিশেষ করে হাসপাতাল ও ক্লিনিক সংশ্লিষ্ট এলাকায় এই দামে আরও বেপরোয়া।

নগরী ঘুরে ডাব বিক্রেতাদের এমন স্বেচ্ছাচারিতার প্রমাণও পেয়েছে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর।

শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সামনে ভ্যানে ডাব বিক্রি করেন ইউনুস আলী। তিনি দাবি করেন, শ্রাবণ ও ভাদ্র মাসে ডাব বেশি পাওয়া যায় না। তার উপরে ডেঙ্গু বেড়ে যাওয়ায় ডাবের চাহিদা বেশি। গৃহস্থ পর্যায়ে প্রতিপিস কিনে পরিবহণ খরচ দিয়ে শহরে আনতেই ১৩০ থেকে ১৫০ টাকা পড়ে। এজন্য বেশি দামে বিক্রি করতে হচ্ছে। প্রতিপিস ১৮০ থেকে ২২০ টাকায় বিক্রি করেন তিনি।

বঙ্গবন্ধু উদ্যান এলাকার বিক্রেতা রাসেল বলেন, ডাব ২৫০ টাকা বিক্রি করলে লাভ রাখা যায়। এখন ১৬০ টাকা থেকে ২০০ টাকায় বিক্রি করি। এতে তেমন লাভ হয় না।

নথুল্লাবাদ এলাকার জসিম বলেন, গ্রামে এখন ডাব পাওয়া যায় না। এজন্য ডাব বেশি দামে কিনতে হচ্ছে। ১৮০ থেকে ২২০ টাকায় ডাব বিক্রি করতে খারাপ লাগলেও আমাদের করার কিছু নেই। টিকে থাকার জন্য বিক্রি করতে হচ্ছে।

সদর রোডের একটি বেসরকারি ক্লিনিকে চিকিৎসাধীন রোগীর স্বজন সেলিম মিয়া বলেন, শনিবার সন্ধ্যায় ১৯০ টাকায় এক পিস ডাব কিনেছি। যা পনেরো দিন আগেও ৬০ টাকায় কিনতাম। বরিশালের বিভিন্ন এলাকায় প্রচুর ডাবের ফলন হয়। কিন্তু ব্যবসায়ীরা সিন্ডিকেট করে এত অস্বাভাবিক দাম রাখছে।