‘বাজার অস্থিতিশীল করতে সিন্ডিকেটের আশ্রয় নিচ্ছেন ব্যবসায়ীরা’


দৈনিক সিরাজগঞ্জ ডেস্ক প্রকাশের সময় : অক্টোবর ৩, ২০২৩, ৭:০০ অপরাহ্ন /
‘বাজার অস্থিতিশীল করতে সিন্ডিকেটের আশ্রয় নিচ্ছেন ব্যবসায়ীরা’

বাজার ব্যবস্থাপনাকে অস্থিতিশীল করতে ব্যবসায়ীরা সিন্ডিকেটের আশ্রয় নিচ্ছেন বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কৃষিবিদ আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম।

তিনি বলেন, ঘুষখোর, পাচারকারী, মুনাফাখোর এরা হলো দুর্বৃত্ত। এগুলো এক ধরনের দস্যুতা, এরা দেশের শত্রু। দেশ গোল্লায় গেলেও এরা কিছু ভাবে না। এরা দেশ প্রেমিক নয়।

মঙ্গলবার (৩ অক্টোবর) দুপুরে রাজধানীর সিরডাপ আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত বিএজেএফ প্রশিক্ষণ কর্মশালার সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি।

তিনি বলেন, যারা ব্যবসার নামে এমন কর্মকাণ্ড করে মানুষকে কষ্ট দেয় আমরা কখনো তাদের সমর্থন করি না। তাদের পাশে দাঁড়ানোর কথা কখনো চিন্তাও করি না। এ ধরনের ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে সরকারের অবস্থান কঠোর। তাদের দমন করতে সরকারের বিভিন্ন সংস্থা কাজ করছে।

বাহাউদ্দিন নাছিম বলেন, বাংলাদেশের কৃষকরা ন্যায্য দামে সারের জন্য বিএনপি জামায়াতের সময়ে জীবন দিয়েছেন। অধিকার অর্জনে তারা জীবন দিয়েছেন। একবার নয়, একাধিকবার। এই কৃষির জন্য বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা ভর্তুকির জায়গাটা ধরে রেখেছেন। কৃষি নিয়ে যারা রাজনীতি করে তাদের অর্জন টেকসই হবে না। আওয়ামীলীগ দেশের কৃষকদের জন্য অন্তপ্রাণ। আমাদের দেশের মানুষের বেঁচে থাকার জন্য খাদ্য নিরাপত্তার জন্য আমরা কাজ করি। বাংলাদেশ ভয়াবহ খাদ্য সংকটে পড়ছে, এমন আতঙ্ক মানুষের মাঝে ছড়ানো হয়েছিল। তাতে লাভ হয়নি। বাংলাদেশ খাদ্য সংকটে পড়বে না।

কৃষিবিদ ইনস্টিটিউটের সাবেক এই সভাপতি বলেন, বঙ্গবন্ধু কন্যা কৃষি শিক্ষা-গবেষণা খাতে বরাদ্দ বৃদ্ধি করেছেন। তিনি সারের দাম কমিয়ে কৃষকদের মুখে হাসি ফুটিয়েছেন। তার নেতৃত্বে দেশের কৃষি উৎপাদনমুখী ও বাণিজ্যিক কৃষিতে রূপান্তরিত হচ্ছে। কৃষিকে ডিজিটাল করেছেন। কৃষির উন্নয়নে কৃষকদের জন্য সার, বীজসহ সকল কৃষি উপকরণের মূল্যহ্রাস, কৃষকদের সহজ শর্তে ও স্বল্পসুদে ঋণ সুবিধা প্রদান, ১০ টাকায় ব্যাংক অ্যাকাউন্ট খোলার সুযোগসহ তাদের নগদ সহায়তার ব্যবস্থা করেছেন। পাশাপাশি নিরাপদ ও পুষ্টিকর খাদ্য সরবরাহ নিশ্চিতসহ কৃষিপণ্যের রপ্তানি বাড়াতে উত্তম কৃষিচর্চা নীতিমালা প্রণয়ন করেছেন। বর্তমানে দেশের জিডিপির ১১.৫০% আসে কৃষি খাত থেকে এবং বাংলাদেশের ৪১% মানুষ এখন কৃষি কাজের সঙ্গে জড়িত।

কৃষি সাংবাদিকদের উদ্দেশে তিনি বলেন, আমাদের কিছু সমস্যা রয়েছে। সেগুলো কৃষি সাংবাদিকদের তুলে ধরতে হবে। সেগুলো আপনারা সমাজ, রাষ্ট্র, দেশ ও সরকারের কাছে তুলে ধরবেন। কৃষি হলো আমাদের অর্থনীতির প্রাণ। কৃষিকে বাদ দিয়ে উন্নয়ন অগ্রগতির কথা চিন্তা করা যায় না। আপনাদের কার্যক্রম শুধু লেখনী দিয়ে নয় গবেষণায়ও থাকতে হবে। সংবাদের ভেতরেও সাংবাদিকতা থাকতে হবে।

তিনি আরো বলেছেন, ভিসা নীতি যার যার দেশের নিজস্ব বিষয়। বাংলাদেশও বিশ্বের যে কোনো সমৃদ্ধ দেশের সব নাগরিকদের ভিসা দেয় না। সবকিছুর একটা নিয়ম আছে।