স্ত্রী রেগে গেলে যা করতে পারেন


দৈনিক সিরাজগঞ্জ ডেস্ক প্রকাশের সময় : অগাস্ট ২৯, ২০২২, ১১:৩৩ পূর্বাহ্ন /
স্ত্রী রেগে গেলে যা করতে পারেন

লাইফস্টাইল ডেস্ক : সম্পর্ক ঘিরে মানুষ বিভিন্ন রকম অভিজ্ঞতা অর্জন করে। কখনো দুষ্টুমিষ্টি প্রেম থাকে। আবার টকঝাল ঝগড়াও থাকে। বলে রাখা ভালো, স্ত্রী যখন অভিমান করে থাকেন। স্বামীরা কিন্তু তা বেশ পছন্দ করেন। রাগের প্রকাশ-অভিমান থেকেই হতে পারে। কিন্তু তা যদি একটা বাড়াবাড়ির পর্যায় যায়, তখন অস্বস্তির শেষ থাকে না।

স্বামী বেচারা বিপদে পড়ে যান! সত্য কথা হচ্ছে, স্বামী-স্ত্রীর মধ্য ঝগড়া তো হবেই! কিন্তু তা যেন এমন পরিস্থিতিতে না চলে যায় যে, আপনার স্ত্রীর সঙ্গে আপনার সম্পর্ক খারাপ হতে শুরু করে। কখনো না কখনও ধৈর্য্যচ্যুতি হয়েই থাকে। কথায় কথায় স্ত্রী রেগে গেলে যা করতে পারেন:

>> স্ত্রী রেগে যেতেই পারেন। কিন্তু তা যদি খুব ঘনঘন হয়। তখন কিন্তু সমস্যা। তাই বলে এমন কাজ আপনি করবেন না, যাতে পরিস্থিতি আরো খারাপ হতে পারে! বরং এমন কাজ করুন, যা আপনাদের সম্পর্কও ঠিক রাখে। স্ত্রীর কথায় কথায় রেগে যাওয়াও আপনি সামলে নিতে পারেন।

>>প্রত্যেকেরই একটা মেল্টিং পয়েন্ট থাকে। যখন আপনার স্ত্রী খুবই রেগে আছেন, তখন তার মেল্টিং পয়েন্ট বোঝার চেষ্টা করুন। এমন কোনো কথা তখন বলে বসবেন না, যা পরিস্থিতি আরো খারাপ করে দিতে পারে। যদি কোনো ভুল করে থাকেন যা আপনার স্ত্রীকে রাগিয়ে দিতে পারে, তাহলে আগে থেকেই তাঁ কাছে দোষ স্বীকার করে নিন। ক্ষমা চেয়ে নিন। আপনি যে অনুতপ্ত তা আপনাকে দেখেই যেন বোঝা যায়।

>>দেখুন আপনার স্ত্রী তো আর এমনি এমনি রেগে যাননি। নিশ্চয়ই কোনো না কোনো কারণ আছে। হয়তো আপনিই সেই কারণ। হয়তো কোনো দোষ করেছেন। আবার নাও করতে পারেন। শান্ত থাকুন। আপনি যদি সত্যিই কোনো দোষ করে থাকেন, তবে সঙ্গে সঙ্গে তা মেনে নিন।
নিজের দোষকে আড়াল করার চেষ্টা করবেন না।

>> আপনার যে কথা বা আচরণে স্ত্রী কষ্ট পেয়েছে-সেই বিষয়টি উল্লেখ করে বলুন আপনি তার জন্য দুঃখিত। দেখবেন পরিস্থিতি অনেকটাই ঠিক হয়ে যাবে। আপনার স্ত্রীর রাগও ধীরে ধীরে কমে যাবে। দোষ করে নিজের দোষ না মেনে নিলে সমস্যা বাড়বে।

>>রেগে অনেক সময় মানুষ যা বলতে চায় না তাও বলে ফেলে। সব কথা সিরিয়াসলি নিয়ে ঝগড়া বাড়াবেন না। আপনার কাছেইতো তার আবদার থাকবে নাকি!

>> সব সময় জিতে যেতে চাইবেন না। মানুষ রেগে গেলে তাকে আগে স্বাভাবিক অবস্থায় ফেরানোর উদ্যোগ নিন। ঝগড়ার সময় মানুষ অনেক কথাই বলেন। তখন তাদের ইগো এক মারাত্মক ভূমিকায় কাজ করে। বিপরীতের মানুষের সঙ্গে তর্কে জেতার খাতিরে নানা কথা তারা বলতে থাকেন। তাকে কথা শোনাতে থাকেন। আপনার স্ত্রী রেগে থাকার সময়েও আপনাকে নানা কথা শোনাতে পারেন। দুই একটি ছোট বড় কথা বলতে পারেন।

>>কথায় কথা বাড়াবেন না। এক সময় স্ত্রী নিশ্চয়ই আপনার উপরে রেগে আছেন। সেই সময়ে আপনাকে তিনি দুই একটা কথা শোনাতেই পারেন। কিন্তু আপনি এমন কোনো কাজ করবেন না, যা তাকে আরো রাগিয়ে দেয়। কথার মাঝখানে কোনো কথা বলবেন না। তিনি যখন কথা বলছেন, তখন তার কথা শুনুন।

>> ইগনোর করবেন না। তার কথাগুলো শুনুন। আপনি তার সঙ্গে সহমত, তা বুঝিয়ে দিন। তাকে বলতে দিন। পরে তিনি নিজেই আপনাকে সরি বলবেন।

আজকালের কন্ঠ /রাকিব